Top banner
Language : Bengali | English
Quick Links
 

১৬ ডিসেম্বর আমাদের বিজয় দিবস উপলক্ষে আমি দেশবাসী এবং বিদেশে বসবাসরত বাংলাদেশিদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন
তারিখ : ০২ পৌষ ১৪১৯ ১৬ ডিসেম্বর ২০১২


index photo

index photo

Mr. Md. Zillur Rahman
President
People's Republic of Bangladesh

১৬ ডিসেম্বর আমাদের বিজয় দিবস। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর দীর্ঘ ন’মাস সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে আমরা এদিন চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করি। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আমি দেশবাসী এবং বিদেশে বসবাসরত বাংলাদেশিদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

বাঙালির স্বাধীনতার ইতিহাসে মহান বিজয় দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে ঐতিহাসিক স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন, দীর্ঘ ন’মাস সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে তা এই দিনে চূড়ান্ত বিজয় অর্জনের মধ্যদিয়ে পরিপূর্ণতা পায়। পৃথিবীর মানচিত্রে জন্ম নেয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের। আমি আজ গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী বীর শহীদদের, যাঁদের সর্বোচ্চ ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয় স্বাধীনতা। আমি বিনম্রচিত্তে পরম শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে, যিনি শত জেল-জুলুম উপেক্ষা করে বাঙালিদের বিশ্বদরবারে আপন সত্তায় প্রতিষ্ঠিত করেছেন। আমি শ্রদ্ধা জানাই বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক-সমর্থকসহ সর্বস্তরের জনগণকে, যাঁরা আমাদের বিজয় অর্জনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অবদান রেখেছেন।

এ বছর বিজয়ের একচল্লিশ বছর পূর্তি উদ্যাপিত হচ্ছে। স্বাধীনতার অব্যবহিত পর জাতির জনক যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে পুনর্গঠনের মাধ্যমে ‘সোনার বাংলা’য় পরিণত করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেই স্বপ্ন পূরণ হওয়ার আগেই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা বিরোধীচক্র জাতির জনক এবং তাঁর পরিবারের সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যা করে। রুদ্ধ করে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের পথকে। ’৭৫ পরবর্তী প্রায় দেড়যুগ আমাদের গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রার পথও মসৃণ ছিল না। ফলে আমরা কাক্সিক্ষত উন্নয়ন থেকে পিছিয়ে পড়ি। আমাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নও হয় ব্যাহত।

নানা চড়াই-উৎরাই পার হয়ে দেশে আজ গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশের জনগণ বর্তমান সরকারকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করে। সরকার জনগণের কল্যাণে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। বাস্তবায়নে নেয় যুগোপযোগী পদক্ষেপ। ফলে অর্জিত হয় নানা সাফল্য। বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও বাংলাদেশ ধারাবাহিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে। গণতন্ত্রের বিকাশ, নারীর ক্ষমতায়ন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের উন্নয়ন, নারী শিক্ষার সম্প্রসারণ, স্থানীয় সরকার শক্তিশালীকরণ, কৃষির উন্নয়ন, খাদ্য নিরাপত্তা, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের বিকাশ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানীর উন্নয়ন, তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশ সাধন ইত্যাদি ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে তৈরিপোশাক, নীটওয়্যার, হিমায়িত পণ্য, পাট ও চামড়াজাত পণ্য, চা, ফার্মাসিউটিক্যালস্, সিরামিক, হস্ত ও কুটিরজাত পণ্যের পাশাপাশি জাহাজশিল্প নতুন করে স্থান করে নিয়েছে।
চলমান পাতা


আমাদের প্রবাসী ভাইয়েরা তাঁদের কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা দেশে প্রেরণের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন। মাতৃভূমির কল্যাণে তাঁদের এ অবদানের জন্য ধন্যবাদ জানাই।

‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে শত্র“তা নয়’, জাতির পিতা ঘোষিত এ মূলমন্ত্রকে ধারণ করে আমাদের পররাষ্ট্রনীতি পরিচালিত হচ্ছে। প্রতিবেশীদেশসহ আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে আমাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক ক্রমান্বয়ে সম্প্রসারিত হচ্ছে। জাতিতে জাতিতে আমাদের এ যোগাযোগ উত্তরোত্তর আরও গভীরতর হবে, এ আমার বিশ্বাস। বাংলাদেশ বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠাসহ বৈশ্বিক জলবায়ুর নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় আন্তরিক। এ লক্ষে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

বর্তমান সরকার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীকে সামনে রেখে ‘ভিশন ২০২১’ ঘোষণা করেছে। আমাদের বিপুল মানবসম্পদ ও তথ্যপ্রযুক্তির সার্থক ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা এ ‘ভিশন’ বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হবো ইন্শাল্লাহ। আমি মহান বিজয় দিবসের প্রাক্কালে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাবো আসুন, আমরা দলমত নির্বিশেষে মুক্তিযুদ্ধের লক্ষ্য ও চেতনা বাস্তবায়নে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে অবদান রাখি।

সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ একটি সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলায় পরিণত হোক, মহান বিজয় দিবসে এ আমার প্রত্যাশা।

খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।
মোঃ জিল্লুর রহমান

 

Home | Contact us | Sitemap
© Copyright 2009, Bangabhaban - Bangladesh, all rights reserved.
Financed by Support to ICT Task Force (SICT) , Planing Division. Developed by : Ethics Advanced Technology Ltd. (EATL)